-Hello Everyone! আসসালামু আলাইকুম সবাইকে,যে যেখান থেকে পড়তেছেন আশা করি সবাই ভালো আছেন। উপরের টাইটেল-টি দেখে বুঝতে পারছেন আজকের Topic কি? হ্যাঁ, আজকে আমরা প্রোগ্রামিং ক্যারিয়ার গড়তে কিছু টিপস বলব যা আপনাকে কাজে দিবে সে সম্পর্কে কথা বলব। আমরা প্রোগ্রামের সকলে করতে চাই কিন্তু কয়জনে সফল হই? সে প্রশ্নটা সব সময় থেকেই যায়। আজকে সেই বিষয়ে আপনাদের পাঁচটি টিপস শেয়ার করব ইনশাআল্লাহ।

তো চলুন শুরু করা যাক :

-First Of All

আচ্ছা ধরেন আমি ধরে নিলাম, আপনি প্রোগ্রামিং নিয়ে হালকা পাতলা জানেন। প্রোগ্রামিং কি কেন কিভাবে ইত্যাদি। অথবা, আপনি প্রোগ্রামিং নিয়ে কিছু না জানেন তাহলে আমদের ওয়েবসাইট এ একটা ব্লগ আছে এই টা পড়তে পারেন। So আজকে আমরা Programming Career নিয়ে কিছু জিনিস জানব- তো খাতা কলম নিয়ে বসে পড়ুন চলুন শুরু করা যাক-

 

১। বিভিন্ন প্রোগ্রামিং কন্টেস্ট-এ অংশগ্রহন করা।

আপনি যে প্রোগ্রামিং ভাষায় পারদর্শী বা আপনি যেই ভাষায় পারেন আপনাকে আগে বেসিক বিষয়গুলো জানতে হবে। এবং সেই বিষয়গুলো নিয়ে বিভিন্ন প্রোগ্রামিং প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করার চেষ্টা করতে হবে। এখন বিভিন্ন সাইটে বিভিন্ন ধরনের প্রোগ্রামিং সমস্যার সমাধান রিলেটেড ইভেন্ট বা কন্টেস্ট থাকে। আপনি সেই ইভেন্টগুলোতে চাইলেই জয়েন করতে পারেন। ফলাফল যাই হোক না কেন আপনাকে সাহস করে প্রোগ্রামিং প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করতে হবে। প্রথম দিকে হয়তো বা তেমন ভালো ফলাফল পাবেন না কিন্তু আস্তে আস্তে এটি অনেক অনেক হেল্প করে। সফল না হলেও এটলিস্ট কিছু বিষয়ের সম্পর্ক অবশ্যই আপনি শিখতে পারবেন। বর্তমানে অনেক সাইটেই এই প্রতিযোগিতা অংশগ্রহণ করা যায়। যেমন: হ্যাকার রেঙ্ক, কোড ওয়ার্‌স ইত্যাদি। সাইটগুলোতে নিয়মিতই প্রোগ্রামিং প্রতিযোগিতা চলে। আপনি জেনে সেখানেও প্রোগ্রামিং প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে দেখতে পারেন আপনার স্কিল কতটুকু এবং আপনি কতটুকু সমস্যার সমাধান করতে পারেন। তা আপনি জানতে পারবেন।

২. প্রতিনিয়ত কোড প্রাক্টিস-র মধ্যে থাকা:

প্রোগ্রামিং বিষয়টা মুখস্ত করার কোনো বিষয় নয়। আপনি প্রোগ্রামিং যত করবে আপনার দক্ষতা বৃদ্ধি পাবে। তাই দক্ষতা বৃদ্ধি কে কি আপনাকে প্রতিনিয়ত চর্চার মধ্যে থাকতে হবে। আপনি যত বেশি চর্চা করবেন আপনার দক্ষতা তত বেশি হবে। আজকে একদিন প্রোগ্রামিং করলাম তো তিনদিন চললাম না এরকম হলে আপনি কখনোই ভালো প্রোগ্রামিং ক্যারিয়ার গড়তে পারবেন না। আপনি যদি প্রোগ্রাম আর সত্যিই হতে চান তবে আপনাকে কিছু ডেডিকেটেড সময় ব্যয় করতে হবে এর পিছনে। সেটা হতে পারে প্রতিদিন ২ – ৩ অথবা ১ – ২ ঘন্টা। কিন্তু মূল থিম হচ্ছে আপনাকে প্রতিদিন নির্দিষ্ট সময় প্রোগ্রামের পেছনে ব্যয় করতে হবে। অনেকে প্রোগ্রামিং শিখে হতাশ হয়ে যায় যে সে কাজ পায়না। আপনাকে প্রথম সর্বপ্রথম সেই চিন্তা থেকেই বেরিয়ে আসতে হবে। আপনি কাজ পাওয়া না পাওয়া বড় কথা না আপনি যখন চর্চায় নিয়মিত থাকবেন যখন অনেকগুলো প্রজেক্ট করবেন তখন দেখবেন এমনি আপনার সিভি টা ভারী হয়ে। সুতারাং আপনি যেখানে থাকেন কোড অবশ্য চর্চায় রাখতে হবে।

৩. প্রোগ্রামিং নিয়ে ব্লগ লেখা :

যদিও কথাটা শুনতে কেমন যেনো অকোয়ার্ড লাগলেও এ জিনিসটা সত্যিই খুবই খুবই কাজের। কেননা দেখুন প্রোগ্রামিং বিষয়টা মুখস্ত করার বিষয় না আপনি এটাকে নিয়ে যত বেশি কাজ করবেন আপনি তত বেশি দক্ষ হয়ে উঠবেন। এখন আপনি যে বিষয় গুলো জানেন যে বিষয়গুলো নিত্য নতুন শিখছে সেগুলো যদি আপনি ব্লগ আকারে কোন একটি সাইডে রেখে দেন তখন অবশ্য সেটা আপনার জন্য প্লাস পয়েন্ট এবং নতুন যাচ্ছে তাদের জন্যও বটে একটা প্লাস পয়েন্ট হবে। So, যারা প্রোগ্রামিং নিয়ে কিছু করতে চাচ্ছেন তাদের জন্য অত্যন্ত ভালো একটা জিনিস। যেমন আপনি যখন এই লেখাগুলো লিখে রাখছেন তখন আপনি আপনার প্রয়োজনে ব্যবহার করতে পারছেন পাশাপাশি আপনি অন্য কেও সহায়তা করতে পারছেন। অর্থাৎ এক প্রকার সেগুলো কি আপনি নোট করে রাখতেছেন।

৪. ওয়েব সাইট বা প্রজেক্ট তৈরী করা :

ওয়েব সাইট বা প্রজেক্ট আবার বা সহজ বাংলায় যদি বলি আপনি নিজে একটা নিজের পোর্টফোলিও (Portfolio) ওয়েবসাইট তৈরী করে রাখলে ভালো। যা আপনার অনেক অনেক কাজে দিবে। বলাতো যায়না কখন আপনার কাজ দেখতে কেউ চাইতে পারে। তখন আপনি সহজেই আপনার পোর্টফোলিও (Portfolio) দিয়ে দিতে পারেন। এতে করে আপনি যখন নিয়মিত প্র্যাকটিস এর উপর থাকবেন পাশাপাশি সেটা আপনার স্ত্রীর মতোই কাজ করবে। আগেই বলেছি আপনার যত চর্চা বা প্রাক্টিস করতে হবে। আপনি তত বেশি দক্ষ হয়ে উঠবেন। তাই একজন প্রোগ্রামার হিসেবে আপনাকে অবশ্যই একটা পোর্টফোলিও (Portfolio) তৈরি করে রাখা প্রয়োজন। তাই আপনি যা কিছু করবেন তা একটি প্রজেক্ট আকারে রাখতে হবে। যেন সুন্দর লাগে দেখে।

৫. আপনি যা যা শিখছেন তা সঠিকভাবে প্রয়োগ :

দিনশেষে আপনি অনেক কিছু পারেন কিন্তু এটির সঠিক ব্যবহার না জানলে এটী কিছু-ই না। So, আপনাকে আগে জানতে হবে এটি কোথায় ব্যবহার করবেন।

আমাদের অনেকের ভেতর একটা অনীহা কাজ করে যখন কোন একটি বিষয় শেখার পর সেই নিয়ে কাজ করতে পারে না। আপনাকে সেই চিন্তা ধারা থেকে বেরিয়ে আসতে হবে। আপনি যখন যেকোনো একটি ভাষা শিখলেন তখন সে ভাষায় বিভিন্ন প্রজেক্ট করার চেষ্টা করুন । এতে করে আপনি অনেক ভাবে লাভবান হবেন। এক, প্রোগ্রামিং ইন্টারভিউর ক্ষেত্রে কিন্তু যারা ইন্টারভিউ নিবে তারা আপনার কাছ থেকে সবগুলো ল্যাঙ্গুয়েজ সম্পর্কে জানতে চাইবেন না। তারা যে কোন একটি বিশেষ ল্যাঙ্গুয়েজ এর সম্পর্কে জানতে চাইবে অথবা জিজ্ঞেস করবে আপনি কোন ভাষায় পারদর্শী। তখন আপনার ওই নির্দিষ্ট ভাষায় অর্জিত জ্ঞান কাজে দিবে। তাই যে প্রোগ্রামিং ভাষা শিখবেন সেটাকে ভালো করে প্রকাশ করে শিখবেন এবং সেই সম্পর্কিত বিভিন্ন প্রজেক্ট করার চেষ্টা করবেন। যেমন আপনি যদি JAVA বা Python নিয়ে কাজ করেন তা নিয়ে একটা প্রজেক্ট বানানো সেইটা যেই কোনোকিছু-ই হতে পারে। So, সময়কে কাজে লাগান ইনশাআল্লাহ ভালো কিছু হবে।

Thanks To Everyone

This Blog Edited By Sourov Dey